- Advertisement -
হোম জাতীয় এক বছরে ব্যাপক সাফল্য বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদারের

সেবাপ্রত্যাশীদের মাঝে আস্থা সৃষ্টি

এক বছরে ব্যাপক সাফল্য বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদারের

- Advertisement -

চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদান করেই বিআরটিএকে সুশৃংখল ও আধুনিক একটি প্রতিষ্ঠানে রূপ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন নুর মোহাম্মদ মজুমদার। প্রতিষ্ঠানটির রূপকল্প ও অভিলক্ষ্য অনুযায়ী কাজ করে গত একবছরেই বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতি দূর করা, সুশৃংখল ও দালালমুক্ত করে সেবাপ্রত্যাশীদের আস্থা অর্জন সহ ব্যাপক সাফল্য দেখাতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটিকে আরও উন্নত করতে নানা পরিকল্পনা নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার।

বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের ১০ম ব্যাচের কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ মজুমদারের জন্ম ফেনীর পরশুরাম উপজেলার উত্তর শালধর গ্রামে। ১৯৯১ সালে বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের সদস্য হিসেবে তিনি সহকারি কমিশনার পদে সরকারি চাকরিতে প্রবেশ করেন। তিনি এরইমধ্যে প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে নিষ্ঠা ও সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন।

গত বছরের ২৫ জুন থেকে তিনি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ ) এর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে তিনি পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) বিআরটিএতে, অতিরিক্ত সচিব হিসেবে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন।

সূত্রমতে, বিআরটিএর রূপকল্প হচ্ছে-ডিজিটাল, টেকসই, নিরাপদ, সুশৃংখল, পরিবেশবান্ধব আধুনিক সড়ক পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। আর অভিলক্ষ্য হচ্ছে-আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার, সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে অংশীজনের সচেতনতা বৃদ্ধি, যুগোপযোগী সড়ক পরিবহন আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগের মাধ্যমে ডিজিটাল, টেকসই, নিরাপদ, সুশৃংখল, পরিবেশ বান্ধব আধুনিক সড়ক পরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তোলা।

নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদানের পর থেকেই বিআরটিএ‘র রূপকল্প ও অভিলক্ষ্য বাস্তবায়নের টার্গেট নিয়ে কাজ করছেন নুর মোহাম্মদ মজুমদার। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে নানা প্রতিকূল পরিবেশেও তিনি তার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

চেয়ারম্যান পদে যোগদানের কয়েকমাসের মাথা তিনি এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, বিআরটিএ অফিসকে দালাল মুক্ত করা হবে। এর জন্য দেশের সব জেলা প্রশাসককে ডিও লেটার দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রতি ৩মাস পর পর সড়ক নিরাপত্তা কমিঠি মিটিং করবে এবং বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। সবাইকে আইন মেনে চলতে হবে এবং সচেতন হতে হবে। গত একবছরে তিনি বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে তিনি তার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করে চলেছেন। করোনা পরিস্থিতিতেও তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও এলাকায় সরেজমিনে পরিদর্শন করে সমস্যার সমাধান এবং বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছেন।

জানা গেছে, গত এক বছরে বিআরটিএতে দালাল নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সাফল্য দেখিয়েছেন নুর মোহাম্মদ মজুমদার। ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরিস্থিতির উন্নতির চেষ্টার পাশাপাশি বিআরটিএ‘র সচ্ছতা ও দুর্নীতি বন্ধসহ বেশ কিছু ক্ষেত্রে ইতিবাচক কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন বিআরটিএর চেয়ারম্যান। এ কারণে বিআরটিএর সেবা প্রত্যাশাকারীদের মধ্যে আশা ও আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে।

বিআরটিএ‘র চেয়ারম্যানের এক বছরের কাজের মূল্যায়ন করে বিশিষ্টজনেরা বলেন, গত এক বছরে চেয়ারম্যানকে সক্রিয় মনে হয়েছে। এতে করে তাঁর প্রতি বিআরটিএর সেবা প্রত্যাশিদের আস্থা তৈরি হয়েছে। তবে চেয়ারম্যান এই আস্থার প্রতিদান দিতে না পারলে জনগণের আশাভঙ্গ হবে।
ড্রাইভিং লাইসেন্সের বর্তমান অবস্থা নিয়ে বিশিষ্টজনরা বলছেন, ড্রাইভিং লাইসেন্সের ভোগান্তি দূর করতে হলে বিআরটিএর চেয়ারম্যান কে আরো কৌশলী হতে হবে।

বাণিজ্যিক গাড়ির মেয়াদ নির্ধারণে বর্তমান চেয়ারম্যানের উদ্যোগঃ উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটির সুপারিশের দুই বছরেরও বেশি সময় পর, বাস ও ট্রাকসহ সব ধরণের বাণিজ্যিক যানবাহনের সার্ভিস চালিয়ে যাওয়ার মেয়াদ নির্ধারণ করে দিতে যাচ্ছে সরকার। বিআরটিএ‘র চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার কিছুদিন আগে পরিবহন বিশেষজ্ঞ, পরিবহন নেতা, যানবাহন প্রস্তুতকারক ও আমদানিকারকসহ সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে এ বিষয়ে বৈঠকে বসেছেন।
যানবাহনের ফিটনেস সনদ নবায়নে অনলাইন অ্যাপয়েন্টমেন্ট চালুঃ যানবাহনের ফিটনেস সনদ নবায়নে অনলাইন অ্যাপয়েন্টমেন্ট পদ্ধতি চালু করেছে বিআরটিএ‘র বর্তমান চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার। তিনি যোগদানের পরে এ সংক্রান্ত একটি গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বিআরটিএ। বিআরটিএর ওই গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মূল্যবান সময় বাঁচান, অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে ফিটনেস সনদ গ্রহণ করুন। গতবছরের ১৫ অক্টোবর থেকে এ পদ্ধতিতে ফিটনেস নবায়ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ঢাকার তিনটি মেট্রো সার্কেল, মিরপুর, ইকুরিয়া ও দিয়াবাড়ি থেকে এ সনদ নেওয়া যাচ্ছে। সারাদেশের বিআরটিএর কার্যালয়ে এ পদ্ধতিতে ফিটনেস সনদ নবায়ন কার্যক্রম চালু করাও চেষ্টা করছেন তিনি। এছাড়া বিআরটিএর নিবন্ধিত গাড়ি বিআরটিএর যে কোন সার্কেলে ফিটনেস করার সুযোগও তিনি করছেন দায়িত্ব নেয়ার পরে।

বিআরটিএতে বদলি বাণিজ্য বন্ধ: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ বিআরটিএর কর্মকর্তাদের বদলি ও পদায়ন নিয়ে খোদ বিআরটিএর প্রশাসন বিভাগের অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়গুলো আলোচিত ছিল। বর্তমান চেয়ারম্যান যোগদানের পরে বদলি বাণিজ্য, ক্ষমতার জোরে পছন্দের সার্কেলে বদলি হওয়ার প্রক্রিয়া বন্ধ করেন তিনি। বিশেষজ্ঞরা মনে করে নুর মোহাম্মদ মজুমদারের সচ্ছতা জবাবদিহিতার কারণে বদলি অনিয়ম পুরোপুরি বন্ধ হবে বিআরটিএতে।

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

আরও সংবাদ

- Advertisement -