- Advertisement -
হোম অর্থনীতি এফবিসিসিআইয়ের নতুন সভাপতি জসিম উদ্দিন

এফবিসিসিআইয়ের নতুন সভাপতি জসিম উদ্দিন

- Advertisement -

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) ২৩তম সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন। তিনি ২০২১-২৩ মেয়াদে এফবিসিসিআইয়ের নেতৃত্ব দেবেন। নতুন পর্ষদে জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি হয়েছেন সংগঠনটির সাবেক সহ-সভাপতি ও রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু।
রোববার নির্ধারিত দিনে মতিঝিলে এফবিসিসিআই আইকন টাওয়ারে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আলী আশরাফ। নির্বাচনী বোর্ড সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ সভাপতির সঙ্গে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত সংগঠনের অ্যাসোসিয়েশন ও চেম্বার গ্রুপ থেকে তিনজন করে মোট ছয়জন সহ-সভাপতির নামও ঘোষণা করে।

অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের তিন সহ-সভাপতি হলেন কালি প্রস্তুতকারক মালিক সমিতির এমএ মোমেন, বারভিডার সাবেক সভাপতি ও লেদারগুডস ম্যানুফেকচারিং অ্যাসোসিয়েশনের হাবিব উল্লাহ ডন এবং মুদ্রণ শিল্প সমিতির আমিন হেলালী।

চেম্বার গ্রুপের তিন সহ-সভাপতি হলেন ময়মনসিংহ চেম্বারের সভাপতি ও সড়ক পরিবহন সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক শামীম, মিনিস্টার হাইটেক পার্কের চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর চেম্বারের এমএ রাজ্জাক খান রাজ এবং পিরোজপুর চেম্বার থেকে পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠান লাবিব গ্রুপের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন আলমগীর।

নির্বাচনি বোর্ড জানায়, প্রতিটি পদের বিপরীতে একটি করে মনোনয়নপত্র জমা পড়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে ২৬ এপ্রিল নতুন পর্ষদের পরিচালক নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে চেম্বার গ্রুপের দুইজন এবং অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের দুইজন যোগ্যপ্রার্থী তাদের প্রত্যাহার করে নিলে নির্বাচন হয়ে পড়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন। এবার চেম্বার গ্রুপ থেকে ২৩ জন এবং অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে ২৩ জন করে মোট ৪৬ জন পরিচালক নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের সঙ্গে সরকার মনোনীত ৩২ জনসহ ৭৮ জন পরিচালক থাকছেন নতুন পর্ষদে। নির্বাচিত ঘোষণার পর জসিম উদ্দিন সরকারের লক্ষ্য অর্জনে এফবিসিসিআইর মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের যুক্ত করে কাজ করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘ছোট-বড় সব ব্যবসায়ীর মধ্যে ঐক্য সুদৃঢ় করতে চাই। ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতির বিকাশ এবং সুরক্ষায় নীতিমালা প্রণয়নে বেসরকারি খাতের অংশীজনদের নিয়ে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’ দেশের অর্থনীতিকে টেকসই ও শক্তিশালী করতে তিনি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে যেতে চান।

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

আরও সংবাদ

- Advertisement -