উদ্বোধনের অপেক্ষায় ‘শেখ হাসিনা কালচারাল ভিলেজ’ 

নিজস্ব প্রতিবেদক

৯ জুন, ২০২৪ ১১:০৭ পূর্বাহ্ন

উদ্বোধনের অপেক্ষায় ‘শেখ হাসিনা কালচারাল ভিলেজ’ 

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে নিবেদিত একটি জাদুঘর, একটি ৯-ডি থিয়েটার, একটি এইচডি সিনেপ্লেক্স, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং নাটকের জন্য একটি অ্যাম্ফিথিয়েটার এবং ফেরিস হুইলের মতো একচেটিয়া রাইড সহ, জামালপুর শহরের শেখ হাসিনা সাংস্কৃতিক গ্রামটি একটি আইকনিক। 

সরকারি অর্থায়নে নির্মিত এবং দয়াময়ী মোড়ে আট একর জমিতে বিশ্বমানের মানের ডিজাইন করা, গ্রামের লক্ষ্য জেলার সাংস্কৃতিক ল্যান্ডস্কেপকে রূপান্তর করা। জামালপুর পৌরসভা জমি অধিগ্রহণের জন্য ৫৮ কোটি টাকা অবদান রেখে সাংস্কৃতিক গ্রাম কাম বিনোদন পার্কে এ পর্যন্ত প্রায় ২০০ কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) জামালপুর জেলা কার্যালয় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে, যা এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে।

প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ ২০১৭  সালের প্রথম দিকে শুরু হয়েছিল৷ যদিও পার্কটি প্রায় সম্পূর্ণ, এটি এখনও চালু হয়নি, বেশ কয়েকটি পরিকল্পিত উদ্বোধনের তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে৷

এলজিইডি জামালপুর অফিসের তত্ত্বাবধায়কের মতে, সাংস্কৃতিক গ্রামটি ২০২৫ সালের জুন মাসে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার কথা রয়েছে।

এই ভবনগুলির মধ্যে একটি জামালপুরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং উল্লেখযোগ্য ঘটনাগুলির জন্য নিবেদিত একটি বৃহৎ জাদুঘর হোস্ট করবে, যার নির্মাণ ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। গ্রামের একমাত্র সাংস্কৃতিক ভবনের কাজও শেষ হয়েছে এছাড়া কয়েকদিন আগে একটি বোট ক্লাব নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে।

উল্লেখযোগ্যভাবে, পার্কটিতে বিনোদন পার্কগুলির মধ্যে দেশের প্রথম 9-ডি থিয়েটার, সেইসাথে একটি এইচডি সিনেপ্লেক্স অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। বহিরঙ্গন ইনস্টলেশনেও চমক রয়েছে।

হাইলাইটগুলির মধ্যে একটি হল ওয়াটার ফাউন্টেন, যা দুবাইয়ের একটির আদলে তৈরি। এই ঝর্ণাটিতে জল রয়েছে যা রঙ পরিবর্তন করে এবং সঙ্গীতের তালে তালে একটি আলংকারিক লাইট শো সহ থাকে।

বিনোদন প্রেমীদের জন্য, ৩৬০টি আসন সহ একটি বিশাল ফেরিস হুইল রয়েছে, যাতে লোকেরা একসাথে বসতে পারে। এই ফেরিস হুইলটিও দেশে প্রথম। বিভিন্ন স্থাপত্যের নকশায় শোভা পাচ্ছে পুরো সাংস্কৃতিক গ্রাম।

কমপ্লেক্সটিতে একটি শহীদ মিনার, খোলা মাঠ এবং একটি সুন্দর বৃত্তাকার হ্রদ রয়েছে যার চারপাশে হাঁটার পথ রয়েছে। লেকের পশ্চিম দিকে, একটি অ্যাম্ফিথিয়েটার তৈরি করা হবে যাতে এটি জলের উপর ভাসছে। উপরন্তু, একটি চিলড্রেনস আর্ট প্লাজা, সেইসাথে লেকের মাঝখানে বিস্তৃত একটি ফুটব্রিজ থাকবে।

এছাড়াও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো গ্রামের প্রধান সাংস্কৃতিক ভবনে নিয়মিত অনুশীলন ও মহড়া করার সুযোগ পাবে।

কমপ্লেক্সে ৫৮ টি দোকান সহ একটি ছয়তলা মার্কেট রয়েছে। কর্তৃপক্ষের মতে, এই দোকানগুলি থেকে উৎপন্ন রাজস্ব গ্রামের পরিচালনার ব্যয় বহন করবে।

এলজিইডি জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সায়েদুজ্জামান সাদেক বলেন, "এই প্রকল্পটি পরিদর্শনের মাধ্যমে দর্শনার্থীরা জামালপুরের ঐতিহ্য এবং মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারবে। আমি বিশ্বাস করি এটি সারা দেশে একটি নতুন মাত্রা যোগ করবে।"

বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, জামালপুরের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলী ইমাম দুলাল বলেন, আমি আশা করি জামালপুরের সকল সক্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন সাংস্কৃতিক পল্লীতে স্থান পাবে এবং একসাথে কাজ করতে পারবে।

মনিমেলার সভাপতি সিদ্ধার্থ শঙ্কর এবং নবাঙ্কুর সভাপতি রফিকুজ্জামান মল্লিক তুষার সহ সাংস্কৃতিক কর্মীরাও সাংস্কৃতিক গ্রামটিকে স্বাগত জানিয়েছেন, জেলার সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে এর ভবিষ্যতের ইতিবাচক প্রভাব তুলে ধরে।

জামালপুরের সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী জাহাঙ্গীর কবির সেলিম পার্কটি সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনায় রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

জামালপুর জেলা কালচারাল অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, কমপ্লেক্সটি আঞ্চলিক ও জাতীয় সংস্কৃতির সংমিশ্রণ ঘটাবে।




বিনোদন - এর আরো খবর